নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে পৌর আওয়ামীলীগের উদ্যোগে
রায়পুরে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত

নিজস্ব প্রতিবেদক:

আজ ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস।
দিবসটি উপলক্ষে রায়পুর পৌর আওয়ামীলীগের আয়োজনে আলোচনা সভা, মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত হয়েছে।

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে পৌর আওয়ামীলীগের কার্যালয়ে নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে রায়পুর পৌর আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক ও লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য আলহাজ্ব কাজী জামশেদ কবির বাক্কিবিল্লাহ’র সভাপতিত্বে পালিত হয় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন,
লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য ও রায়পুর পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রফিকুল হায়দার বাবুল পাঠান, রায়পুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও পৌরসভার প্যানেল মেয়র কাজী নাজমুল কাদের গুলজার, লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য অ্যাডভোকেট মিজানুর রহমান মুন্সি, পৌর কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন রাসেল, পৌর কাউন্সিলর জাকির হোসেন নোমান পাটোয়ারী, লক্ষ্মীপুর জেলা পরিষদের সদস্য ও রায়পুর উপজেলা যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক মামুন বিন জাকারিয়া, সাবেক ভিপি আলমগীর হোসেন অশ্রু, সাবেক ছাত্রনেতা শরীফ হোসেন খোকন মোল্লা, রায়পুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাবেক আহ্বায়ক কামরুল হাছান রাসেল, রায়পুর পৌর আওয়ামীলীগের সদস্য পীরজাদা সোহরাব মিশরী, সাবেক ছাত্রনেতা আবু সাঈদ জুটন, মহিলা আওয়ামীলীগ নেত্রী শামছুন্নাহার লিলি ও কোহিনূর বেগমসহ রায়পুর উপজেলা ও পৌর আওয়ামীলীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

বক্তব্যে বক্তারা বলেন, ১৯৭২ সালের এই দিনে বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স্থপতি পাকিস্তানের কারাগারে নির্জন প্রকোষ্ঠ থেকে মুক্তি লাভ করে তাঁর স্বপ্নের স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশে ফিরে আসেন।

বাঙালি জাতি বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে দখলদার পাকিস্তানি বাহিনীর বিরুদ্ধে দীর্ঘ ৯ মাস রক্তক্ষয়ী লড়াইয়ের মাধ্যমে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বিজয় অর্জন করে। মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের কারাগারে থেকে মুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশে ফিরে আসার মাধ্যমে সে বিজয় পূর্ণতা লাভ করে। এইদিন স্বাধীন বাংলার নতুন সূর্যালোকে সূর্যের মতো চির ভাস্বর-উজ্জ্বল মহান নেতা ইতিহাসের মহানায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ফিরে আসেন তার প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশে। স্বদেশের মাটি ছুঁয়ে বাংলাদেশের ইতিহাসের নির্মাতা শিশুর মতো আবেগে আকুল হলেন। আনন্দ-বেদনার অশ্রুধারা নামলো তার দু’চোখ বেয়ে। প্রিয় নেতাকে ফিরে পেয়ে সেদিন সাড়ে সাত কোটি বাঙালি আনন্দাশ্রুতে সিক্ত হয়ে জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু ধ্বনিতে প্রকম্পিত করে তোলে বাংলার আকাশ বাতাস। জনগণনন্দিত শেখ মুজিব সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে দাঁড়িয়ে তার ঐতিহাসিক ধ্রুপদি বক্তৃতায় বলেন, ‘যে মাটিকে আমি এত ভালবাসি, যে মানুষকে আমি এত ভালবাসি, যে জাতিকে আমি এত ভালবাসি, আমি জানতাম না সে বাংলায় আমি যেতে পারবো কিনা। আজ আমি বাংলায় ফিরে এসেছি বাংলার ভাইয়েদের কাছে, মায়েদের কাছে, বোনদের কাছে। বাংলা আমার স্বাধীন, বাংলাদেশ আজ স্বাধীন।’

যুদ্ধবিধ্বস্ত ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন সদ্য স্বাধীন বাঙালি জাতির কাছে ছিল একটি বড় প্রেরণা। দীর্ঘ সংগ্রাম, ত্যাগ তীতিক্ষা, আন্দোলন ও আত্মত্যাগের মাধ্যমে মুক্তিযুদ্ধে বির্জয় অর্জনের পর বিধ্বস্ত বাংলাদেশকে সামনে এগিয়ে নেওয়ার প্রশ্নে বাঙালি জাতি যখন কঠিন এক বাস্তবতার মুখোমুখি তখন পাকিস্তানের বন্দিদশা থেকে মুক্তি পেয়ে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করেন সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ রাতে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণার পর বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতার করা হয়। ২৯০ দিন পাকিস্তানের কারাগারে প্রতি মুহূর্তে মৃত্যুর প্রহর গুনতে গুনতে লন্ডন-দিল্লি হয়ে মুক্ত স্বাধীন স্বদেশের মাটিতে ফিরে আসেন বাঙালির ইতিহাসের বরপুত্র শেখ মুজিবুর রহমান। সে থেকে প্রতিবছর কৃতজ্ঞ বাঙালি জাতি নানা আয়োজনে পালন করে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস এবং তারই ধারাবাহিকতার লক্ষ্মীপুরের রায়পুরেও নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে দিবসটি পালিত হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  • 0
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *